শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৫:২৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
চুমকি আপার পক্ষে নেত্রকোনায় ত্রান বিতরন পদ্মা সেতু উদ্ভাধন উপলক্ষে কালীগঞ্জে বিজয় র‌্যালী কালীগঞ্জে সেলাই মেশিন , কৃষকের মাঝে সার ও যুব উন্নয়নের ঋণ বিতরণ দেলদুয়ারে বিনামুল্যে সার বীজ বিতরণ কালীগঞ্জে পরিত্যক্ত ঘর থেকে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শ্যামনগরে শোভাযাত্রায় ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ছেলে ও ছেলে বৌয়ের বিরুদ্ধে বাবা মা কে মারধোর অভিযোগ থানায় মামলা যান্ত্রিক এবং মানবিক ক্রুটি দূর করতে পারলে ইভিএম গ্রহণযোগ্য হবে কালীগঞ্জে সমন্বিত পরিকল্পনা প্রনয়ণ বিষয়ক কর্মশালা কালীগঞ্জে নারী উদ্যোক্তা প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে ভাতা বিতরণ 

হঠাৎ বুকে ব্যাথা হতে পারে হার্ট অ্যাটাকের উপসর্গ।

রিপোটারের নাম / ৫৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২১

হঠাৎ বুকে অস্বস্তি হলে কী করবেন

হঠাৎ বুকে ব্যাথা হতে পারে হার্ট অ্যাটাকের উপসর্গ।

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় যথেষ্ট সচেতন বলেই খুব তাড়াতাড়ি চিকিৎসা পেয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছেন। কিন্তু হার্ট অ্যাটাকের উপসর্গ সম্পর্কে অনেকেই সচেতন নন। নিঃশ্বাসের কষ্ট, বুকে পাথর চাপিয়ে দেওয়ার মতো অনুভূতি, সঙ্গে দরদর করে ঘাম। ব্যথা ক্রমশ হাত, কাঁধ ও চোয়ালে ছড়িয়ে পড়া, এ রকম উপসর্গ দেখা গেলে অনেকেই অ্যাসিডিটি বা গ্যাসের সমস্যা ভেবে ভুল করে অ্যান্টাসিড খেয়ে বাড়িতে বসে থাকেন। এঁদের অনেকেই এসব উপসর্গের কিছুক্ষণের মধ্যে মারা যান। কেন না, এই লক্ষণগুলি বেশির ভাগ ক্ষেত্রে হার্ট অ্যাটাকের উপসর্গ, বললেন  এসএসকেএম হাসপাতালের কার্ডিয়োলজি বিভাগের প্রধান, হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ সরোজ মণ্ডল। ১৯৯০ সালে আমাদের দেশে হার্ট অ্যাটাকে ২২ লক্ষ ৬০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। ২০২০ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৭ লক্ষ ৭০ হাজারে। একটু সচেতন হলেই এই মৃত্যুহার কমানো যায়, বললেন সরোজ মণ্ডল।

কাঁধে ব্যথা শুরু হয়ে তা হাতে ছড়িয়ে পড়ে।  চোয়ালে ব্যথা করে পেটের উপরের দিকে ব্যথা অনেকের ক্ষেত্রে বুকে চাপ ধরা ভাব দিয়ে হার্ট অ্যাটাকের সূত্রপাত হয় হাঁটা চলা বা এক্সারসাইজ চলাকালীন তো বটেই, অনেক সময় বিশ্রামরত অবস্থাতেও বুকে চাপ ধরা ভাব ও শ্বাসপ্রশ্বাসের কষ্ট সহ অন্যান্য উপসর্গ শুরু হতে পারে মাথা ঘোরার সঙ্গে সঙ্গে মাথা হালকা হয়ে গিয়ে শরীর টলমল করে শুয়ে পড়তে ইচ্ছে করে, ক্রমশ সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা চলে যায়  হাত, ঘাড় শক্ত হয়ে যায় ঘাম হয় ও নাড়ির গতি বেড়ে যায় শরীর ঠান্ডা হয়ে যেতে শুরু করে অনেকে আবার অজ্ঞান হয়ে যেতে পারেন এই ধরনের লক্ষণ দেখা দিলে অনেকে অ্যান্টাসিড খেয়ে নিজের চিকিৎসা করার চেষ্টা করেন। তা না করে রোগীকে অ্যাসপিরিন জাতীয় ওষুধ খাইয়ে এক মুহূর্তও সময় নষ্ট না করে কাছাকাছি হার্টের চিকিৎসার সুবিধেযুক্ত হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ