বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০১:২৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ

জমি লিখে নিতে মাকে পেটালেন ছেলে

রিপোটারের নাম / ৩৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ৭ মে, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতরানো অবস্থায় কেঁদে কেঁদে সাংবাদিকদের কথাগুলো বলেছিলেন বৃদ্ধ রেজিয়া বেগম (৮০)।

দিনাজপুর: ‘আমি বারবার ছোট ছেলেকে বলছিলাম বাবা রাজিব, তুই আমাকে মারিস না। আমি তো তোর মা। কিন্তু ছেলে আমার কথা  শোনেনি। সে ও তার বউ এমনভাবে আমাকে মারল, আজ আমি হাসপাতালে শুয়ে শুয়ে কাতরাচ্ছি।’

জমি লিখে না দেওয়ায় বৃদ্ধা মাকে এমন নির্যাতন করে দুই হাত ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে নিজ ছোট ছেলের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ছোট ছেলে রাজিব আলীকে মঙ্গলবার (৩ মে) আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার দিনাজপুর সদর উপজেলার বড়বন্দর নতুনপাড়া এলাকায় নিজ বাড়িতে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। গ্রেপ্তার রাজিব আলী ডন নীলফামারীর সৈয়দপুরে ন্যাশনাল ব্যাংকে জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা পদে চাকরিরত আছেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জনা যায়, রেজিয়া বেগমের দুই ছেলে, দুই মেয়ে। তার স্বামী ও বড় ছেলে মারা গেছেন অনেক আগে। দুই মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। বড় ছেলের এক সন্তানকে নিয়ে বড়বন্দর নতুনপাড়ার বাসায় থাকেন রেজিয়া বেগম। বেশ কিছুদিন ধরে ছোট ছেলে রাজীব মায়ের কাছে বসতবাড়ির ১৬ শতাংশ জমি লিখে নিতে চাপ দিচ্ছিলেন। কিন্তু মা তাতে রাজি হচ্ছিলেন না।ঈদের দিন (মঙ্গলবার) রাতে রাজীব ও তার স্ত্রী খালেদা মাকে জমি লিখে দিতে চাপ দেন। এতে রাজি না হওয়ায় রাজীব ও তার স্ত্রী মায়ের ওপর অমানবিক নির্যাতন শুরু করেন। যে লাঠির ওপর ভর করে তার মা চলাফেরা করেন, সেই লাঠি কেড়ে নিয়ে মাকে পেটাতে শুরু করেন রাজীব। লাথি মেরে মেঝেতে ফেলে দেন। নির্যাতন সইতে না পেরে মা বাড়ি থেকে পালিয়ে যাওয়ার জন্য বেরিয়ে এলে আবারও টেনেহিঁচড়ে বাড়িতে ঢুকিয়ে নির্যাতন করেন স্বামী-স্ত্রী।

এ সময় বৃদ্ধার দুই হাত ভেঙে যায়। মাথায় ও পায়ে আঘাত পান। পরে বৃদ্ধার নাতি লিমন তার ফুফুদের খবর দিলে তারা এসে মাকে উদ্ধার করে দিনাজপুর মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করান।

রেজিয়া বেগম বলেন, যে ছেলেকে কষ্ট করে আদর-যত্ন দিয়ে মানুষ করেছি, সেই ছেলে মাকে নির্যাতনের ঘটনায় জেলে। আমি সমাজে আমার এ মুখ কেমন করে দেখাব? মানুষ তো আমাকে দেখে বলবে যে আমি ছেলের হাতে মাইর খাওয়া মা। আমার এ জীবন রেখে কী লাভ বলেন? বেঁচে থাকার চেয়ে মরে যাওয়া ভালো ছিল।

দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোজাফফর হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, বৃদ্ধা মাকে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ পেয়ে ছেলে রাজিবকে গ্রেপ্তার করে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ