সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ

কালীগঞ্জে মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ও বিধবা পরিবারকে মারধর ও হত্যার হুমকি আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে

রিপোটারের নাম / ৬৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১

কালীগঞ্জে মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ও বিধবা পরিবারকে মারধর ও হত্যার হুমকি আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে
ডেস্ক রিপোর্ট :
১২ মাসের শিশুকে চটে বসানোকে কেন্দ্র করে ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী কনিকা ও তার বড় বোন কনা ভাই কাকন ও তার মাসহ সবাইকে মারধর করায় নেতার বিরুদ্ধে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে কালীগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন বিধবা পরিবার। ঘটনাটি ঘটেছে গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জে পৌর ১ নং ওয়ার্ডের দুর্বাটি গ্রামে।
সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আরমান আকন্দ দলীয় ক্ষমতা অপ ব্যবহার করে প্রতিবেশী র্দূবাটি মাদ্রাসার ৮ম শ্রেনীতে পড়–য়া শিক্ষার্থী ও মৃত ইকবাল হোসেনের স্ত্রী বিধবা নারগিস বেগমের পরিবারের উপর পূর্বের শত্রæতার ক্ষোভ দেখাতে গিয়ে ১২ মাসের শিশুকে চটে বসানোকে কেন্দ্র করে মারধর করেন। পরে উত্তেজিত আরমান শিশুসহ তমাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। কাকন হোসেন দৌড়ে ঘটনাস্থলে এসে তার বোন ও ভাগিনাকে মারার কারণ জানতে চাইলে উভয়ের মধ্যে তর্কাতর্কি ও হাতাহাতি হয়। এক পর্যায়ে আরমানের স্ত্রী ও ছেলে বাড়ি থেকে লাঠি নিয়ে এসে কাকনকে মারধর করা হয় বলে জানান।
প্রত্যক্ষদর্শী যুবক বলেন, হৈচৈ এর শব্দ শুনে সে ঘর থেকে বের হয়ে ঘটনাস্থলে যায়। পরে তাদের ঝগড়া থামিয়ে দেয়। বীর মুক্তিযোদ্ধা রমিজ উদ্দিন আকন্দ বলেন, শিশুকে কেন চটে বসানো হয়েছে এর জন্য শিশুর মা ও তার মামাকে মারধর করেছে নেতা আরমান। সে কিনা এলাকার প্রভাবশালী নেতা। তার বিচার করার লোক নাকি কালীগঞ্জে নাই।

পরে র্নিযাতিত বিধবা নারগিস বেগম বিচারের দাবিতে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ও জনপ্রতিনিধির কাছে গিয়েও কোন বিচার পায় নাই বরং মোবাইলে হুমকির আসতে থাকে যে, থানা পুলিশ করলে তাদের বাড়ি ভিটা ছাড়া করবে বা সুযোগ পেলে জীবনের মত শেষ করে দেয়া হবে। অবশেষে কোন উপায়ান্তর না পেয়ে হুমকির বিরুদ্ধে গত ৪ মে কালীগঞ্জ থানায় জান-মালের নিরাপত্তাচেয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন যার নং-১৭০ তাং ৪/৫/২০২১।

এই বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবদুল আজিজ আকন্দ বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। উভয়পক্ষকে নিয়ে শুক্রবার রাত বসবো। সাধারণ ডায়েরি করার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন কালীগঞ্জ থানার ১ মে তারিখে দায়িত্বপ্রাপ্ত ডিউটি অফিসার এস আই আনসুর। ঘটনাটি অস্বীকার করেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আরমান আকন্দ। তারা তাকে মারধর করেছে পরে ডাক্তারের নিকট গিয়ে চিকিৎসা করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ