সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৫:৩০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামী, বীর মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক মফিজুর রহমান খানের ৭৭তম জন্মদিন

রিপোটারের নাম / ১১১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামী
বীর মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক কে,বি,এম মফিজুর রহমান খানের ৭৭তম জন্মদিন

মুজিবুর রহমান :

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক ষাটদশকের ছাত্রনেতা, স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কে,বি,এম মফিজুর রহমান খানের জন্ম দিন আজ।
তিনি ১৯৪৫ সালের ৩ সেপ্টেম্বর গাজীপুর জেলার কালিগঞ্জ থানাধীন দক্ষিন সোম গ্রামে এক মধ্যবিত্ত সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন । পিতাঃ মরহুম ফরহাদ উদ্দিন খান, মাতাঃ মরহুমা-বদরুন্নেছা খানম ।
তিন ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয় । শিক্ষা জীবনী তিনি দক্ষিন সোম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শেষ করে কালিগঞ্জ রাজা রাজেন্দ্র নারায়ন পাইলট হাইস্কুল পাশ করে ঢাকা ওয়েস্ট এন্ড হাইস্কুল পাঠ্যদান শুরু করেন । ১৯৬৪ সালে ওয়েস্ট এন্ড হাইস্কুল থেকে এস এস সি পাশ করে তৎকালীন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ভর্তি হন । পরে তিনি রাজনৈতিক দিকটি বেছে নেন্। এবং কিছু দিনের মধ্যেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সদস্য পদ লাভ করেন । খুলে যায় ভাগ্যের চাকা, ১৯৬৫ সালে জগন্নাথ কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন । ১৯৬৬ সালে ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন । ১৯৬৬ সালে বাংলাদেশ লিভারেশন ফ্রন্ট তথা স্বাধীন বাংলা নিউক্লিয়াসের সদস্য পদ লাভ করেন এবং নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, কালিগঞ্জ এবং ঢাকা মহানগর নিউক্লিয়াসের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন ।

১৯৬৭ সালে জগন্নাথ কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন । ১৯৬৮ সালে তথাকথিত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার নেতৃত্ব দিতে গিয়ে ২৯ জানুয়ারি গ্রেপ্তার ও প্রায় ১৩ মাস পাকিস্তান দেশরক্ষা আইনে (ডিপিআর) কারাবরণ করেন ।
১৯৬৯ সালে গণআন্দোলনে মুক্তিলাভের পরে ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন ।

১৯৭০ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম আসামী শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক স্মরণে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশক্রমে গঠিত শহীদ জহুর বাহিনীর অধিনায়কের দায়িত্ব গ্রহণের মাধ্যমে বাহিনীর নেতৃত্ব দেন । যে বাহিনী সদস্য ছিলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ।

১৯৭০ সালে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লাভ করেন । ৭১ সালে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য থাকার কারণে স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের অন্যতম সদস্য লাভ করেন ।

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এবং বিএলএফ তথা মুজিব বাহিনীর ঢাকা জেলার অন্যতম সংগঠকের দায়িত্ব পালন করেন । ভারতের দেরাদুনের তাণ্ডয়ায় ট্রেনিং প্রাপ্তির পর তৎকালীন নারায়ণগঞ্জ মহকুমার (বর্তমান জেলা) বিএলএফ এর অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন । (নারায়ণগঞ্জ শহর বাদে) ১৯৭২ সালে অবিভক্ত জাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লাভ করেন ।

কে বি এম মফিজুর রহমান খান যখন ১৯৬৯ সালে ঢাকা মহানগর ছাত্র লীগের সভাপতি তখন সে কমিটির সদস্য ছিলেন, বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা । নগর কমিটির সভাপতির দায়িত্বে থাকার কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে তার গড়ে উঠে কনিষ্ট সম্পর্ক বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িতেও ছিল নিয়মিত যাতায়াত ।
১৯৯১ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন । বর্তমান গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য । কালের পরিক্রমায় বয়সের ভারে জীর্ন, ন্যুব্জ হলেও দেশমাতৃকার ভালোবাসায়, বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় কল্যানমূলক কর্মকাণ্ডে জরিত আছেন ।

তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সবচেয়ে বড় পরিচয়, সে একজন স্বাধীনতা যোদ্ধা । অতএব তিনি মনে করেন স্বাধীনতার জন্য যারা যুদ্ধ করেছেন, জীবন দিয়েছেন, তারাই বাংলাদেশের গর্বিত শ্রেষ্ট সন্তান ও অহংকার । তাঁদেরকে নিয়ে হাজার বছর পরও গবেষণা হবে।
তার কোন চাহিদা নেই কিন্ত দল তাকে কোন কাজে লাগায়নি।
ষাটদশকের ছাত্রনেতা, যুদ্ধকালীন বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার, প্রিয়নেতা কে বি এম মফিজুর রহমান খানের ৭৭তম জন্মদিনে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন করেছেন রানৈতিক নেতৃবিন্দ ও স্বজনেরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ